Wednesday , September 26 2018
Home / অর্থনীতি / ইউএনডিপির মানব উন্নয়ন প্রতিবেদন উন্নতি করলেও আগের অবস্থানেই বাংলাদেশ

ইউএনডিপির মানব উন্নয়ন প্রতিবেদন উন্নতি করলেও আগের অবস্থানেই বাংলাদেশ

বৈশ্বিক মানব উন্নয়ন সূচকে (এইচডিআই) গত বছরের অবস্থানই ধরে রেখেছে বাংলাদেশ। বিশ্বের ১৮৮টি দেশের মধ্যে এ সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ১৪২তম। গতবার ১৮৭টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশ ১৪২তম অবস্থানে ছিল।
জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচি বা ইউএনডিপির ‘মানব উন্নয়ন প্রতিবেদন-২০১৫’-তে এ তথ্য তুলে ধরা হয়েছে। গতকাল রোববার সকালে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের পরিকল্পনা কমিশনের এনইসি সম্মেলন কক্ষে এ প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। যদিও বৈশ্বিকভাবে গত সপ্তাহেই এ প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়েছে। বাংলাদেশে তা প্রকাশে কিছুটা বিলম্ব ঘটেছে।
প্রতিবেদনটি প্রকাশের সঙ্গে যুক্ত নিউইয়র্কভিত্তিক মানব উন্নয়ন প্রতিবেদন কার্যালয়ের পরিচালক সেলিম জাহান এ সময় বলেন, পরিবর্তনশীল বিশ্বে মানব উন্নয়ন সূচকে উন্নতি করতে হলে বাংলাদেশকে কর্মসংস্থান বৃদ্ধি ও এর গুণগত মান উন্নত করতে হবে। এ জন্য সামগ্রিক নীতি কৌশল গ্রহণ করতে হবে। যদি সেটি সম্ভব না হয় তাহলে সমাজের অনগ্রসর অংশটি জীবনমানের দিক থেকে আরও পিছিয়ে পড়বে।
সেলিম জাহান জানান, র্যাঙ্কিং বা অবস্থানের দিক থেকে বাংলাদেশের কোনো পরিবর্তন না হলেও সূচকে অন্তর্ভুক্ত অনেকগুলো খাতে বাংলাদেশ ভালোই উন্নতি করেছে। দুই দশক ধরে মানব উন্নয়ন সূচকে বছরে গড়ে দেড় শতাংশের বেশি উন্নতি করছে।
সূচকের বিভিন্ন খাতে উন্নতি সত্ত্বেও অবস্থান পরিবর্তন না হওয়ার ব্যাখ্যা হিসেবে সেলিম জাহান বলেন, বাংলাদেশ যে হারে উন্নতি করছে অন্য দেশগুলো তার চেয়ে বেশি উন্নতি করছে। তাই অঙ্কের হিসাবে গিয়ে বাংলাদেশ একই অবস্থানে রয়ে গেছে।
ইউএনডিপির প্রতিবেদন অনুযায়ী, মানব উন্নয়ন সূচকে দক্ষিণ এশিয়ায় নেপাল ও পাকিস্তানের চেয়ে এগিয়ে রয়েছে বাংলাদেশ। এবারের তালিকায় নেপাল ১৪৫ এবং পাকিস্তান ১৪৭তম অবস্থানে রয়েছে। তবে বাংলাদেশের চেয়ে এগিয়ে রয়েছে ভারত। ২০১৫ সালের হিসাবে ভারতের অবস্থান ১৩০তম।
প্রতিবেদন প্রকাশ অনুষ্ঠানে বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ওয়াহিদ উদ্দিন মাহমুদ বলেন, মানব উন্নয়নের অনেকগুলো খাতে বাংলাদেশ বেশ ভালো করেছে। কিন্তু সেটির যথাযথ স্বীকৃতি পাওয়া যায় বিলম্বে। তিনি আরও বলেন, সবচেয়ে কম টাকা ব্যয় করে বাংলাদেশ শিক্ষা ও স্বাস্থ্য খাতের সূচকে বেশ সাফল্য পেয়েছে। এটি সম্ভব হয়েছে কম খরচে প্রযুক্তির ব্যবহারের ফলে। কারণ বাংলাদেশের মানুষ অতি সহজে ও দ্রুত যেকোনো নতুন প্রযুক্তির সঙ্গে খাপ খাইয়ে নিতে পারে। একইভাবে শিশুমৃত্যুর হার কমানোর ক্ষেত্রেও বেশ ভালো অগ্রগতি দেখিয়েছে।
এইচডিআইয়ের এবারের তালিকার ১৮৮টি দেশকে চারটি ভাগে ভাগ করা হয়েছে। ভাগগুলো হলো খুবই উচ্চ মানব উন্নয়ন, উচ্চ মানব উন্নয়ন, মধ্যম মানব উন্নয়ন ও নিম্ন মানব উন্নয়নের দেশ। খুবই উচ্চ মানব উন্নয়নের দেশের তালিকায় রয়েছে ৪৯টি দেশ। এ ছাড়া উচ্চ মানব উন্নয়নের তালিকায় ৫৬টি, মধ্যম মানব উন্নয়নের তালিকায় ৩৮টি এবং নিম্ন মানব উন্নয়নের তালিকায় রয়েছে ৪৫টি দেশ। এতে বাংলাদেশ রয়েছে মধ্যম মানব উন্নয়নের দেশের তালিকায়।
১৮৮টি দেশের মধ্যে মানব উন্নয়নে শীর্ষে রয়েছে ইউরোপ অঞ্চলের নরওয়ে। আর সর্বনিম্ন অবস্থানে আফ্রিকার দেশ নিগার।
গত ২০১৪ সালের বিভিন্ন তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে এইচডিআই প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয়েছে। তাতে বাংলাদেশের মানুষের গড় আয়ু ধরা হয়েছে ৭১ দশমিক ৬ বছর।
প্রতিবেদন প্রকাশ অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের জ্যেষ্ঠ সচিব মোহাম্মদ মেজবাহউদ্দিন ও ইউএনডিপির বাংলাদেশ প্রধান (কান্ট্রি ডিরেক্টর) পয়োলাইন টেনে সিস।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*