Sunday , September 23 2018
Home / সর্বশেষ / এবার সৌদি মালয়েশিয়ার প্রবাসীরা ভোট দিতে পারবেন’

এবার সৌদি মালয়েশিয়ার প্রবাসীরা ভোট দিতে পারবেন’

নিজস্ব প্রতিবেদক

Micronews24.com

ঢাকা: আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রবাসী বাংলাদেশিরা ভোট দেয়ার সুযোগ পাবেন জানিয়ে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, আগামী নির্বাচনে সৌদি আরব, মালয়েশিয়াসহ বেশ কয়েকটি দেশের প্রবাসী বাংলাদেশিদের ভোট দেয়ার সুযোগ থাকবে।

বুধবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে জাতীয় উন্নয়নে প্রবাসীদের ভূমিকা শীর্ষক এক সেমিনারে তিনি এ কথা জানান।

অর্থমন্ত্রণালয়ের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ এ সেমিনারের আয়োজন করে।

তিনি বলেন, আগামী জাতীয় নির্বাচনে প্রবাসী বাংলাদেশিদের ভোট প্রদানের সুযোগ দিতে সরকার বিশেষ ব্যবস্থা নিচ্ছে। যেসব এলাকা বা দেশে বেশি সংখ্যক প্রবাসী আছেন, সেখানে বিশেষ সেন্টার স্থাপনের মাধ্যমে তাদের ভোট প্রদানের বিষয়ে সরকার ভাবছে।

অর্থমন্ত্রী বলেন, আগামী বাজেট হয়তোবা আমার শেষ বাজেট। এ বাজেটে সরকার প্রবাসীদের বিনিয়োগে আগ্রহী করতে তাদের প্রণোদনার মেয়াদ আরও এক বছর বাড়ানোর ব্যবস্থা নেবে।

তিনি বলেন, মনে রাখতে হবে প্রবাসীদের পাঠানো অর্থে আমার দেশের অর্থনীতির চাকা চাঙা। তাই তাদেরকে যেন আমরা কখনও লেবার না বলি।

ঢাকার বাইরের জেলাগুলোর পরিস্থিতি মারাত্মক: অর্থমন্ত্রী
ঢাকা: দেশের চলমান হরতাল-অবরোধকে ইঙ্গিত করে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, ‘এই পরিস্থিতির মধ্যেই আমাদের চলতে হবে।’

তিনি বলেছেন, হরতাল-অবরোধের ফলে ঢাকায় হয়তো কিছু বোঝা যায় না, কিন্তু রাজধানীর বাইরের জেলাগুলোতে পরিস্থিতি খুবই মারাত্মক আকার ধারণ করেছে।

বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে ‘বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক অগ্রযাত্রা এবং সামষ্টিক অর্থনীতির সাম্প্রতিক অবস্থান’ বিষয়ে এক প্রেস বিফ্রিংকালে তিনি এসব কথা বলেন।

অর্থনৈতিক অস্থিতিশীলতার জন্য চলমান রাজনৈতিক সঙ্কট সমাধানের কোনো উদ্যোগ নেবেন কি না এমন প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী মন্তব্য থেকে বিরত থাকেন। তিনি বলেন, ‘আশা করি ৭ দিনের মধ্যে পরিস্থিতির স্বাভাবিক হবে।’

এ সময় সাংবাদিকরা ‘পরিস্থিতি তো স্বাভাবিক হচ্ছে না’ বলে প্রশ্ন করলে জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘আশা তো চলতে থাকবেই। ঢাকার আশেপাশের জেলাগুলোর অবস্থা খুব বিপজ্জনক। ঢাকা মোটামুটি সচল আছে। এই জেলাগুলোকেও আমাদের সচল করতে হবে।’

প্রবৃদ্ধির হার ৭.৩% বাস্তবায়ন সম্ভব হবে কি না এমন প্রশ্নের জবাব তিনি অর্থমন্ত্রী গভীর সংশয় প্রকাশ করে বলেন, ‘হাইলি ডাউটফুল। হয়তো সম্ভব হবে না।’

চলমান আন্দোলন প্রসঙ্গে জানতে চাইলে মুহিত বলেন, ‘যারা আন্দোলন করছে তারা বাংলাদেশের শত্রু। এটা আন্দোলন নয়। বাংলাদেশের উন্নতি ব্যাহত করার উদ্দেশ্য নিয়ে এটা করে যাচ্ছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।’
অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘বাজেটের আকার না বাড়লে সরকারের কার্যক্রম বাড়ানো যায় না। বর্তমানে বৈদেশিক সাহায্য কমে গেছে, এটা কাঙ্ক্ষিত ছিল না। মাথাপিচু আয় দ্বিগুণ হয়েছে। ২০০৫-০৬ অর্থবছরে মাথাপিচু আয় ছিল ৫০৬ মার্কিন ডলার। ২০১৩-১৪ সালে মাথাপিচু আয় দ্বিগুণ হয়েছে। যার পরিমাণ ১১শ মার্কিন ডালার।

রিজার্ভ বেড়েছে জানিয়ে তিনি জানান, ‘খাদ্যশস্যের উৎপাদন বেড়েছে ৩ কোটি ৮১ লাখ টন। বিদ্যুৎ খাতে প্রভূত উন্নতি সাধিত হয়েছে। এই খাতে উৎপাদন ২০০৫ -০৬ অর্থবছরে ছিল ৩ হাজার ৭৮২ মেগাওয়াট। বর্তমানে বিদ্যুৎ উৎপাদন দাঁড়িয়েছে ১৩ হাজার ২৮৩ মেগাওয়াট।’

মুহিত বলেন, ‘শিল্প খাত সম্পর্কে কিছু বলতে চাই না। দেশের প্রবৃদ্ধির হার কাঙ্ক্ষিত পর্যায়ে পৌঁছাতে দিতে চাচ্ছেন না বেগম খালেদা জিয়া।’

তিনি বলেন, ‘সোশ্যাল প্রটেকশন বিএনপির আমল থেকে চলছে। তারা এটা প্রোটেকশন করেছে। আমাদের সময় অনেক এগিয়েছে। কিন্তু কিছু বুদ্ধিজীবী এটা স্বীকার করতে চায় না।’

‘সত্যিকার অর্থেই আইসিটি খাতে দেশে বিপ্লব সাধিত হয়েছে’ বলেও মন্তব্য করেন অর্থমন্ত্রী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*