Thursday , September 20 2018
Home / বাংলাদেশ / চট্টগ্রাম বিভাগ / কুবিতে সাংবাদিকদের নিয়ে হল প্রাধ্যক্ষের কটূক্তিমুলক বক্তব্যের বিরুদ্ধে সাংবাদিক সমিতির নিন্দা ও প্রতিবাদ

কুবিতে সাংবাদিকদের নিয়ে হল প্রাধ্যক্ষের কটূক্তিমুলক বক্তব্যের বিরুদ্ধে সাংবাদিক সমিতির নিন্দা ও প্রতিবাদ

আল আমিন , কুবি প্রতিনিধি :
কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল প্রাধ্যক্ষ এবং ‘স্বঘোষিত’ বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি ড.দুলাল চন্দ্র নন্দী বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত সাংবাদিকদের কটুক্তি করে অযাচিত বক্তব্য প্রদান করেছেন।

মঙ্গলবার রাতে বঙ্গবন্ধু হলে এক ক্রীড়াপ্রতিযোগীতার উদ্ধোধন পর্বে তিনি এ কটুক্তিমূলক এবং অযাচিত বক্তব্য প্রদান করেন। এই ঘটনায় ক্ষোভ ও নিন্দা প্রকাশ করে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি (কুবিসাস) একটি বিবৃতি দিয়েছে।

বুধবার বিকালে সাংবাদিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো: মতিউর রহমান স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে নিন্দা ও প্রতিবাদ জানায় বিশ্ববিদ্যালয়টির সাংবাদিক সমিতি।জানা যায়, মঙ্গলবার রাতে বঙ্গবন্ধু হলে ক্রীড়া প্রতিযোগীতার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তেব্য তিনি সাংবাদিকদের উদ্দেশ্য করে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকরা মিথ্যা সংবাদ প্রচার করেন, তারা বিশ্ববিদ্যালয়কে কয়েক বছর পিছিয়ে দিয়েছে।এছাড়াও তিনি বলেন, সাংবাদিকরা সদ্য বিদায়ী উপাচার্যের পা ধরে ক্ষমা চেয়েছেন। এ ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে সাংবাদিক সমিতির ঐ বিবৃতিতে বলা হয়, দীর্ঘ দিন ধরে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষ্ঠান ও কর্মসুচিতে ড. দুলাল চন্দ্র নন্দী বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত সাংবাদিকদের নিয়ে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হয়ে কটুক্তি করে বক্তব্য প্রদান করে আসছেন।

তিনি সাংবাদিকদের নিয়ে অসত্য বক্তব্য প্রদান করেছেন।এ দিকে বিভিন্ন সময়ে ড. দুলাল চন্দ্র নন্দীর বিরুদ্ধে বিস্তর অনিয়মের অভিযোগও রয়েছে। ড. নন্দী পরিসংখ্যান বিভাগের সভাপতি থাকাকালীন সময়ে উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে এক শিক্ষকের পদন্নোতি আটকে রাখেন।বিশ্ববিদ্যালয়ের সদ্য বিদায়ী উপাচার্যঅধ্যাপক ড. মোঃ আলী আশরাফ এর মেয়ের বিয়ের অনুষ্ঠানে ১০ জানুয়ারি অনিয়মতান্ত্রিকভাবে বঙ্গবন্ধু হলের ফান্ডের টাকা খরচ করে উপঠৌকন প্রদানের অভিযোগ জানান এক শিক্ষক নেতা।এছাড়াও গত ১৭ মার্চ জাতীয় শিশু দিবসের এক অনুষ্ঠানে তিনি শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসানকে লাঞ্ছিত করেন যা নিয়ে রয়েছে লিখিত অভিযোগও। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক শিক্ষক জানান, দুলাল নন্দী বঙ্গবন্ধু পরিষদের নামে সদ্য নিয়োগ প্রাপ্ত শিক্ষকদের কাছথেকে ৫ হাজার টাকা করে চাঁদা আদায় করেছেন।

সম্প্রতি তার বিরুদ্ধে শিক্ষকদের স্বাক্ষর জালিয়াতে করে বন্যা দূর্গতদের জন্য শিক্ষকদের এক দিনের বেতনে সমপরিমাণ টাকা আত্মসাতের প্রচেষ্টার অভিযোগ রয়েছে। যা গত মাসে বিভিন্ন জাতীয় ও আঞ্চলিক দৈনিকে প্রতিবেদনও প্রকাশ হয়।সকল অভিযোগের বিষয়ে ড. দুলাল চন্দ্র নন্দী সাংবাদিকদের প্রশ্ন এড়িয়ে বলেন, ‘তোমাদের যা ইচ্ছে লিখতে পার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*