Thursday , October 18 2018
Home / বাংলাদেশ / রংপুর বিভাগ / তারাগঞ্জে পুঁজা মন্ডবে পাহাড়াদার নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগ

তারাগঞ্জে পুঁজা মন্ডবে পাহাড়াদার নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগ

 সুমন আহমেদ তারাগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি :

রংপুরের তারাগঞ্জ উপজেলায় বিভিন্ন পুঁজা মন্ডবে পাহাড়াদার নিয়োজিত করতে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। ঘুষের বিনিময়ে ওই পূঁজা মন্ডবের পাহাড়াদারের দায়িত্ব দেওয়ার ও অভিযোগ উঠেছে। এই অনিয়মের সাথে নিজস্ব লোক দিয়ে সুবিধা নিচ্ছেন মর্মে অভিযোগ উঠেছে। আইন অমান্যসহ নানা অনিয়মের মধ্যে আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা ও কর্মচারী জড়িত বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। জানা গেছে, উপজেলার শারদীয় দূর্গা পূজা উপলক্ষে অত্র উপজেলার পূজা মন্ডবে পাহাড়াদার দায়িত্বের নীতিমালা থাকলেও অফিসার সহ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে গাফলতির অভিযোগ উঠেছে। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গতবছর শারদীয় দূর্গা পূঁজা উপলক্ষে উপজেলায় ৫টি ইউনিয়নে ৬৩টি পূঁজা মন্ডবে পাহাড়া দেওয়ার জন্য ৩৫৪ জন আনসারকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল।

এদিকে গত মঙ্গলবার ৬৯ টি দূর্গা পূজা উপলক্ষে পূজা মন্ডবে পাহাড়াদার বাছাই করার জন্য উপজেলা চত্তরে ১৫০ থেকে ১৭০ জনের উপস্থিত হওয়ায় স্থানীয় লোকদের মাঝে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। দুর্নীতিবাজ অফিসার ও কর্মকর্তাদের অপসারনের দাবিতে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্ঠি হয়েছে। অফিসের দায়িত্বে থাকা মহিলা টিআই রাশেদা খানম কল্পনার বিরুদ্ধে অফিস ফাঁকিসহ লোকজনের সাথে খারাপ আচরনের অভিযোগ উঠেছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কযেকজন বলেন, স্থানীয় হওয়ায় দাপট খাটিয়ে নানা সময় অসুস্থতার কথা বলে অফিসে অনুপস্থিত থাকে। বিভিন্ন ট্রেনিং সহ পূজা মন্ডবে পাহাড়াদারের দায়িত্বে কথা বলে টাকাও নেন।

প্রশিক্ষন প্রাপ্ত কয়েকজন বলেন আমরা আনসার ভিডিপি ট্রেনিং করেছি উপজেলা চেয়ারম্যানের সুপারিশও নিয়েছি কিন্তু টাকা না দেওয়ায় খারাপ আচরন করে অফিস থেকে বের করে দেন। টিআই রাশেদা খানম কল্পনা বলেন, আমি অফিসের সিনিয়র কি করতে হবে না হবে তা অমি ভালো বুঝি। আমাকে কেউ বাধা দিলে আমি তাকে দেখে নিবো। আমার বিরুদ্ধে এসব মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করছে।

তারাগঞ্জ উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আতাউর রহমান বলেন, গত কয়েকবছর যাবত অনিয়মের কারণে বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হয়েছিল। তবে এবার ঐ অফিসের কর্মকর্তা ও সহকারিদের ঘুষ নেওয়ার অভিযোগের প্রমান পেলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এ ব্যপারে আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা এম.এ খালেক বলেন, আমি নতুন অফিসার আসলে তেমন নিয়ম কানুন জানা নেই আর ভালো বুঝিওনা। ঠিকমত অফিসও করতে পারিনা জেলা অফিসের কারণে। তবে এবার দূর্গা পূঁজা উপলক্ষে উপজেলায় নিজেই ঘুরে পরিদর্শন করবো। ইউএনও আমিনুল ইসলামের মুঠো ফোনে যোগাযোগ করেও না পাওয়া মন্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*