Wednesday , August 15 2018
Home / বাংলাদেশ / রংপুর বিভাগ / দিনাজপুরে ৩টি পীস স্কুলে ঝুলছে তালা

দিনাজপুরে ৩টি পীস স্কুলে ঝুলছে তালা

peace-school

স্টাফ রিপোর্টার, দিনাজপুর থেকেঃ একটি বিশাল ক্যাম্পাসসহ দিনাজপুরের ৩টি পীস স্কুল তালা ঝুলিছে।

সাইনবোর্ড-ব্যানার,লিখা সব তুলে ও মুখে ফেলা হয়েছে। স্কুলগুলোতে কোন প্রানী’র অস্তিত্ব পাওয়া না গেলেও পীস স্কুলের একটি বিশাল আবাসিক ক্যাম্পাসে কাজ চলছে গ্রীল গেট তৈরী’র।সেখানে স্কুলের শিক্ষার্থীদের বহনের একটি মিনিবাসও রয়েছে। বাসের লেখাও মুছে ফেলা হয়েছে। শ্রমিকদের সাথে সেখানে অবস্থান করছে বাবর্চি পরিচয়ে স্কুলের এক কর্মচারী।

নিজের নাম প্রকাশে অনিচ্চুক ওই ব্যক্তি জানালেন,পীস স্কুল বন্ধ ঘোষণার সাথে সাথে স্কুলের যাবতীয় সাইনবোর্ড,বিল বোর্ড,লেখা তুলে ও মুছে ফেলা হয়েছে। শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা যে যার মতো যেখানে যাওয়ার গিয়েছে।বন্ধ রয়েছে পাঠদান। দিনাজপুর শিশুপার্কের উল্টো পাশ্বে ঈদগা আবাসিক এলাকার পীচ স্কুলে গিয়ে দেখা গেছে,গেট ও দরজায় তালা ঝুলছে। স্কুলের উপর তলায় অবস্থানরত বাড়ি’র মালিকের স্ত্রী জানালেন মঙ্গলবার সন্ধার পর থেকে স্কুলের সব কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে।

গত বছরের ডিসেম্বর মাস থেকে সাড়ে ২৫ হাজার টাকায় নীচের তলা ভাড়া নিয়ে চলতো পীস স্কুল এন্ড কলেজের কার্যক্রম। স্কুলের ভিতরে গিয়ে দেখা গেল আরবি,বাংলা এবং ইংরেজিতে লেখা বিভিন্ন সূরা আর উপদেশ বাণী। উপশহরের ডায়াবেটিস মোড়ে অবস্থিত পীস স্কুল এন্ড কলেজের একই দশা। প্রধান ফটকে ঝুলছে তালা। সাইনবোর্ড,বিলবোর্ড সব তুলে ও ছিঁড়ে ফেলা হয়েছে। বাইরে থেকে পরিলক্ষিত হলো ভেতরের গেট ও দরজায় ঝুলছে তালা। এই স্কুলের ক্যাম্পাস মাতা সাগরের পূর্ব পাশ্বে প্রায় আধা কিলো মিটার দূরে শেখ পুরায় বিশাল আবাসিক ক্যাম্পাস। রাম সাগরের দক্ষিণে বট হাটে রয়েছে আরেকটি পীস স্কুল। সেই স্কুলেরও অবস্থা একই। ঝুলছে তালা। সাইনবোর্ড ও বিল বোর্ডের অস্তিত্ব নেই। কাউকেও পাওয়া গেলনা খুঁজে।

দিনাজপুরে যে তিনটি পীস স্কুল রয়েছে তার মধ্যে প্রতিটি অনুমোদন বিহীন বলে দাবী করছে একটি পক্ষ। তারা পীস স্কুলের নামে রমরমা ব্যবসা চালিয়েছে। তবে ইসলামী শরিয়া অনুযারী নিয়ম-কানুন মেনে চলেছে স্কুলগুলো। শিক্ষকদের জুব্বা ও টুপি, মহিলা শিক্ষকদের বোরখা ও হেজাব পড়ে আসাটা ছিলো বাধ্যতা মূলক।

এদিকে হঠাৎ করে এসব স্কুল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বিপাকে পড়েছে শিক্ষার্থীরা। তবে নাম প্রকাশে অনিচ্চ’ক এসব স্কুলের সাথে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পীস স্কুলের শিক্ষার্র্থীদের শিক্ষাদান করা হবে অন্য স্কুলে একই পদ্ধতিতে। শুধু পাল্টানো হবে স্কুলের নাম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*