Sunday , July 22 2018
Home / বাংলাদেশ / রংপুর বিভাগ / প্রেমিকের বিয়ের খবর শুনে প্রেমিকার আত্মহত্যার চেষ্টা!

প্রেমিকের বিয়ের খবর শুনে প্রেমিকার আত্মহত্যার চেষ্টা!

লালমনিরহাট প্রতিনিধি:

যাকে জীবন যৌবন সবই সপে দিয়েছি, তাকেই যদি জীবনসঙ্গী রুপে না পাই, তাহলে এ জীবন রেখে লাভ কি?

প্রেমিকের অন্যত্র বিয়ের খবর শুনে দুঃখ সইতে না পেরে ১০ শ্রেণীর এক স্কুল ছাত্রী বিষ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন। আর অপরদিকে প্রেমিক ইছা নববধূকে নিয়ে রোমান্সে দিন কাটাচ্ছেন। এদিকে মেয়েটি মেডিকেলে ভর্তি হয়ে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন।

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার বাড়াইপাড়ার সাতহাত কালীবাড়ি নামক এলাকায় ভাতিটারী গ্রামে বৃহস্পতিবার দুপুরে ঘটনাটি ঘটে।

ঘটনাসুত্রে জানা যায়, ঐ এলাকার নাজির উদ্দিনের ছেলে সাকিব হোসেন ইছা (২৫)’র সাথে একই এলাকার জাহাঙ্গীর আলমের স্কুল পড়ুয়া মেয়ে প্রিয়ার (প্রেমিকার ছদ্ম নাম) দেড় বছর যাবত প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। হঠাৎ করে প্রেমিক ইছার অন্যত্র বিয়ের রেজিস্টারি হলে প্রিয়ার মাথা গরম হয়ে যায়। ইছা অন্যত্র বিয়ে করলে প্রিয়া আত্মহত্যা করবে বলে মোবাইলে হুমকি দিলে বিষয়টি ইছা আমলে নেননি ইছা। ফলে বৃহস্পতিবার দুপুরে বিষ খান প্রিয়া। পরে পরিবারের লোকজন প্রিয়াকে উদ্ধার করে হাতীবান্ধা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এনে ভর্তি করে দেন।

শুক্রবার বিকালে ঐ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে দেখা যায় প্রিয়া কাঁদতে কাঁদতে দুচোখ ছানাবড়া করে ফেলেছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে প্রিয়া কান্না জড়িত কন্ঠে সময়ের কণ্ঠস্বরকে বলেন, ২০১৬ সালের পহেলা বৈশাখের পরেরদিন হতে ইছা প্রায়ই আমার পিছুপিছু ঘোড়ে আমাকে বিয়ে করতে চায়। প্রথমে তার প্রস্তাবে রাজি না হলেও পড়ে তার বিভিন্ন মিথ্যা অভিনয় দেখে আমি রাজি হয়ে যাই। এরপর থেকে ইছা বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে আমাকে এলাকার বাহিরে নিয়ে একাধিক দৈহিক সম্পর্কে লিপ্ত হয়।

এভাবে চলতে থাকলে হঠাৎ করে আমি বুধবার দিনে শুনতে পাই ইছা অন্যত্র বিয়ে করছে। এরপরে আমি ইছাকে ফোন করলে সে বলে, আমার ইচ্ছে আমি যাকে খুশি তাকে বিয়ে করব, তাতে তোর কি। বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে আমার ইজ্জৎ নষ্ট আর এতদিনে আমাদের প্রেমের সম্পর্ক জানতে চাইলে সে বলে, ওটা ছিলো টাইম পাস, জাস্ট ফর ইনজয়। আমি তার হাতে পায়ে ধরে বহু কান্নাকাটি করি তাতেও তার মন গলেনি।

এরপরেও আমি তাকে শেষ বারের মত বৃহস্পতিবার সকালে ফোন করে বলি, আমাকে ছাড়া অন্যত্র বিয়ে করলে আমি বিষ খেয়ে আত্মহত্যা করব। আমার আত্মহত্যার কথা শুনে সে বেয়াদবের মত হাসতে হাসতে বলে, তোমার যা খুশি তাই কর। বিষ খাও না হয় আত্মহত্যা কর, তাতে আমার কিছু যায় আসে না। তার এই কথা শোনার পরে আমার মাথা ঠিক ছিলো না তাই আমি বিষ খেয়ে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করি।

প্রিয়া কাঁদতে কাঁদতে সময়ের কণ্ঠস্বরকে আরও বলেন, যাকে আমি জীবনের চাইতে বেশি ভালবেসে নারীর সেরা সম্পদ বিসর্জন দিয়েছি। সেই যখন আমার সাথে বেঈমানি আর বিশ্বাস ঘাতকতা করলো, তাহলে এই জীবন রেখে লাভ কি। আমি ইছাকে ছাড়া বাঁচতে চাই না।

প্রিয়ার বাবা জাহাঙ্গীর আলম সময়ের কণ্ঠস্বরকে জানান, আমাকে নাবালিকা মেয়েকে ফুসলিয়ে ফাঁসলিয়ে তার মাথা নষ্ট করে দিয়েছে ইছা। তার জন্যই আমার মেয়ে আজকে মৃত্যুর পথযাত্রী। আমার মেয়ে একটু সুস্ত হলে আমি ইছার বিরুদ্ধে মামলা করব।

এ বিষয়ে প্রেমিক সাকিব হোসেন ইছার মোবাইল ফোনে কথা বলার চেষ্টা করা হলে অপর প্রান্ত থেকে একটি মেয়ে ফোন রিসিভ করে বলেন, আমি ইছার স্ত্রী বলছি। এ সময় ইছার বাড়িতে বিয়ের গীত ও বাজনার শব্দ শোনা যায়।

হাতীবান্ধা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর দায়িত্বরত ডাঃ নাঈম হোসেন সময়ের কণ্ঠস্বরকে জানান, প্রিয়ার পেটের ভিতর ওয়াস করে তাকে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। তবে প্রিয়া আশংকামুক্ত নয় বলে ঐ ডাঃ জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*