Sunday , August 19 2018
Home / বাংলাদেশ / রংপুর বিভাগ / রংপুরের দারিদ্র ও পথ শিশুদের মাঝে শিক্ষার আলো জাগ্রত করার লক্ষ্যে কাজ করছে : “বন্ধু মানব কল্যাণ সংস্থা”

রংপুরের দারিদ্র ও পথ শিশুদের মাঝে শিক্ষার আলো জাগ্রত করার লক্ষ্যে কাজ করছে : “বন্ধু মানব কল্যাণ সংস্থা”

মো: আহসান হাবীব :
মানুষ মানুষের জন্যে, জীবন জীবনের জন্যে, একটু সহানুভূতি কি মানুষ পেতে পারে না ? ও বন্ধু! কে ধরিবে হাল, কে তুলিবে পাল, কে করিবে কাজ আর কে জাগিবে আজ ? আসুন শিশুদের পাঁশে দাঁড়াই দেখিয়ে দেই আমরাও পারি দেশ ও এই বিশ্বের হাল ধরতে। শিশুরাই হবে এদেশের দেশ ও জাতীর কর্ণধার। তারাই ধরবে ভবিষৎ এ জাতীর হাল। তাই আসুন অসহায় পথ শিশুদের মুখে হাসি ফুটাই। উক্তিগুলোকে বুকে ধারন করে বিভিন্ন শ্লোগানে কিংবা ব্রত নিয়ে প্রতিষ্ঠা করা হয় ” বন্ধু মানব কল্যাণ সংস্থা ” নামের একটি অরাজনৈতিক শিশু সহযোগিতা মূলক সংস্থা। সংস্থাটি ছোট্ট পরিসরে হলেও এর ব্যাপ্তি অনেক।
২০১৪ সালের ২০শে ফেব্রুয়ারী প্রতিষ্ঠিত হয় এই সংগঠনটি। এই সংগঠনটি সুষ্ঠু, সুন্দর ভাবে পরিচালনা করে আসছে রংপুরের বিভিন্ন উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের একাধিক মেধাবী, তরুণ শিক্ষার্থীরা। এই সংগঠনটির সাথে জড়িতরা হলেন: নাজমুল ইসলাম, শিমুল ইসলাম, সৌরভ, লিজা রহমান, তুহিন, মামুন, সৌরভ, মিলন, মেহেদী, মিম আক্তার, সাব্বির ইসলাম, আখি আক্তার, জ্যাতি, আশা রহমান, সায়মা ইসলাম, নিসা, মুজাহিদ ইসলাম, রিমা, ফারহানা, ফরিদ, চাম্পা, দিপক রায়, গৌতম রায়, লিটন, আলামিন, বন্যা, সাদিয়া, মেহাজাবিন, হাবিব রহমান, সোহেল, হাবিব।
দারিদ্র ও পথ শিশুদের নিয়ে রংপুর সিটি কর্পোরেশনের ২৫ নং ওয়ার্ড শালবন মিস্ত্রিপাড়া কৈলাস রঞ্জন মাঠে তারা খোলা মাঠে স্কুল করান। এই স্কুলে প্লে থেকে ৫ম শ্রেণীর ছাত্র- ছাত্রীদের পড়ানো হয়ে থাকে।। শিক্ষার্থীদের লেখা পড়ার সমস্ত খরচ এই সংগঠনটি বহন করে। এমনকি পরিপূর্ণ শিক্ষা দানের জন্য একটি করে গ্রুপে মোট শিক্ষার্থী সংখ্যা ৮০ জন করে। এই সংগঠনটির সাথে জড়িতরা বলেন: শিক্ষার জন্য অনেক অর্থ দিচ্ছেন সরকার, কিন্তু এর কোন ট্রেকিং ব্যবস্থা নেই। বর্তমানে এখনও পথশিশু বাড়ছে, শিশুশ্রম বাড়ছে, স্কুল থেকে ঝড়ে পড়ার হার বাড়ছে। এদের জন্য কিছু করতে বাজেটে বরাদ্দ বাড়াতে হবে। পাশিপাশি সমাজের অগ্রজ মানুষদের এগিয়ে আসতে হবে এসব শিশুদের অধিকার আদায়ের আন্দোলনে। সমাজকে ভাবতে হবে যেন আর কোন পথ শিশু কিংবা অসহায় দরিদ্র পরিবারের শিশুরা কোন কারনেই ঝড়ে পরে না যায়। বন্ধ হয়ে না যায় তাদের চলার গতিপথ। তাই আমরা সবাই যার যা অবস্থান থেকে শিশুদের পাশে দাঁড়াই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*