Saturday , June 23 2018
Home / বাংলাদেশ / রংপুরে মেয়র কর্তৃক অটো পোড়ানোর প্রতিবাদে সমাবেশ

রংপুরে মেয়র কর্তৃক অটো পোড়ানোর প্রতিবাদে সমাবেশ

screenshot_129
রংপুর অফিস: সম্প্রতি রংপুর সিটি মেয়র জনাব সরফুদ্দিন আহমেদ ঝন্টুর নেতৃত্বে অটো বাইক পোড়ানোর ঘটনার প্রতিবাদে এবং ক্ষতিগ্রস্ত অটো চালকদের ক্ষতিপূরণ প্রদানের দাবিতে মানববন্ধন ও সমাবেশ করেছে রংপুর জেলা অটো চালক ইউনিয়ন শ্রমিক কল্যাণ কমিটি।
রবিবার সকাল এগারোটা থেকে সাড়ে বারোটা পর্যন্ত দেড় ঘণ্টা ব্যাপী কাচারী বাজার জিরো পয়েন্টে এই মানববন্ধন কর্মসূচী পালিত হয়। উক্ত কর্মসূচীর সাথে একাত্মতা পোষণ করে বিভিন্ন শ্রমিক ও রাজনৈতিক সংগঠনের নেতা কর্মী ও সাধারণ অটো রিক্সা চালকসহ সকল শ্রেণী পেশার মানুষ মানববন্ধন অংশ গ্রহণ করেন।
কাচারী বাজার অটো রিক্সা চালক ইউনিয়নের সভাপতি শ্রমিক নেতা আব্দুল আউয়ালের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মানববন্ধন চলাকালীন সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জেলা অটো চালক ইউনিয়ন শ্রমিক কল্যাণ কমিটির প্রধান উপদেষ্টা সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও মহানগর জাসদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জননেতা মাসুদ নবী মুন্না, সিপিবি’র জেলা সাধারণ সম্পাদক কমরেড শাহীন রহমান, বাসদের জেলা সমন্বয়ক কমরেড আব্দুল কুদ্দুস, শ্রমিক নেতা মোঃ আব্দুল জলিল, মমিনুল হক, যুব নেতা আব্দুল হান্নান প্রমুখ।
বক্তারা মেয়র কর্তৃক অটো বাইক পোড়ানোর ঘটনার বিরুদ্ধে তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, জীবিকার তাগিদে বেকার যুবক-তরুণরা উপার্জনের জন্য অটো বাইক চালায়। অবৈধ কাগজ-পত্রের জন্য প্রচলিত আইনে দোষীদের বিরুদ্ধে জরিমানা আদায়সহ যেকোনো শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া যেত। কিন্তু প্রতিমন্ত্রী-মর্যাদাসম্পন্ন রসিক মেয়র তা না করে নিজ হাতে অটো বাইকে আগুন লাগানোর মধ্য দিয়ে রংপুরবাসীরও মর্যাদাহানি ঘটিয়েছেন।
বক্তারা প্রশ্ন তোলেন, অটো বাইক কি অবৈধ মাদকদ্রব্যের মতো কোন জিনিস যে তা পুড়িয়ে ফেলতে হবে? এভাবে কি অটো পোড়ানো কি আইনসম্মত? এই ন্যাকারজনক কাজ করার মধ্য দিয়ে মেয়র কার্যত আইন নিজের হাতে তুলে নিয়েছেন, যা কোন ভাবেই গ্রহণযোগ্য হতে পারে না। বক্তারা অবিলম্বে ক্ষতিগ্রস্ত অটো চালকদের ক্ষতিপূরণের দাবী জানিয়ে বলেন, ক্ষতিপূরণ দেয়া নাহলে ঈদের পরে রংপুরের সর্ব স্তরের মানুষকে সাথে নিয়ে অটো শ্রমিকরা মেয়রের বিরুদ্ধে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলবে।
উল্লেখ্য, গত ৬ সেপ্টেম্বর রংপুর নগরে ৩টি অটো বাইকের বৈধ কাগজপত্র না থাকার অজুহাতে রসিক ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে মেয়র সেগুলো আগুন পুড়িয়ে ফেলেন। এর পর থেকেই বিভিন্ন রাজনৈতিক ও শ্রমজীবী সংগঠন এই ঘটনার নিন্দা জানিয়ে আসছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*