Wednesday , September 19 2018
Home / বাংলাদেশ / রংপুর বিভাগ / লালমনিরহাটে তৃত্বীয় শ্রেনী ছাত্রীকে ধর্ষণ:আটক ধর্ষক

লালমনিরহাটে তৃত্বীয় শ্রেনী ছাত্রীকে ধর্ষণ:আটক ধর্ষক

images

লালমনিরহাটের হাতিবান্ধায় তৃত্বীয় শ্রেনীর এক ছাত্রীকে ধর্ষণের দায়ে সাবু মিয়া নামে এক অভিযুক্ত কিশোরকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মামলা ও ধর্ষক গ্রেফতারের পর থেকেই পরিবারকে হুমকি দেওয়া হচ্ছে বলে পরিবার জানায়।

গত শুক্রবার (৫ আগষ্ট) মধ্য রাতে উপজেলার কেতকীবাড়ি গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে তাকে আটক করা হয়। আটকৃত কিশোর সাবু উপজেলার কেতকীবাড়ী গ্রামের বাবুল হোসেনের পুত্র।

এ ঘটনায় শুক্রবার সকালে ধর্ষনের স্বীকার শিশুটির বাবা আব্দুল লতিফ বাদি হয়ে থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। ওই দিন রাতেই থাকে আটক করে পুলিশ।

শিশু ধর্ষনের ঘটনাটি ঘটে বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলার নওদাবাস ইউনিয়নের কেতকীবাড়ি গ্রামে। পরে ধর্ষণের শিকার শিশুটিকে গুরতর আহত অবস’ায় হাতীবান্ধা উপজেলা স্বাস’্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। শিশু কেতকীবাড়ি সরকারী প্রথমিক বিদ্যালয়ের তৃত্বীয় শ্রেনীর ছাত্রী।

এদিকে নওদাবাস ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অশ্বনী কুমার বসুনীয়ার বিরুদ্ধে বাদিকে হুমকি দেয়া এবং এ বিষয়ে খুবই বাড়াবাড়ি করছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

পরিবার জানায়, বৃহস্পতিবার বিকেলে নিজ বাড়ির বাইরের খোলানে একাই খেলছিল তৃতীয় শ্রেনীর ওই ছাত্রী। এসময় প্রতিবেশী বাবলু হোসেনের ছেলে সাবু শিশুটিকে পেয়ারা দেয়ার কথা বলে ডেকে নিয়ে যায়। পড়ে তাকে সাবুর বাড়ির একটি ঘরে ঢুকিয়ে ধর্ষণ করা হয় বলে মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়।

এ ব্যাপারে হাসপাতালে গিয়ে শিশুটির মা রানু বেগমের সাথে কথা হলে তিনি ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ওইদিন ধর্ষণের শিকার শিশুটি বাড়ি ফিরে কাঁদতে থাকলে তার কাছে কারণ জানতে চাওয়া হয়। এসময় শিশুটি ঘটনাটি খুলে বললে তার পড়নের প্যান্টে রক্তের দাগ দেখতে পায়। পরে তাকে গুরতর অসুস’ অবস’ায় হাতীবান্ধা উপজেলা স্বাস’্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

হাতীবান্ধা উপজেলা স্বাস’্য ও প. প. কর্মকর্তা ডা. রমজান আলী উত্তরবাংলাকে জানান, শিশুটির প্রয়োজনীয় শারীরিক পরীক্ষা-নিরীক্ষার লালমনিরহাট সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

হাতীবান্ধা থানার উপ-পরিদর্শক (এস,আই) আবুল কালাম আজাদ উত্তরবাংলাকে বলেন, ওই ঘটনায় ধর্ষণের শিকার শিশুটির বাবা শুক্রবার থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। তাই অভিযুক্ত কিশোর সাবুকে রাতেই গ্রেফতার করা হয় বলে জানান তিনি।

ধর্ষণের শিকার শিশুটির বাবা বলেন, চেয়ারম্যান সাহেব আমাকে ও আমার বড়ভাইকে প্রকাশ্যে দেখে নেয়ার হুমকি দিয়েছেন। আর বলেছেন, তোরা কিভাবে ধর্ষণের ঘটনা প্রমান করিস, আমি তাই দেখবো।’

বাদিকে অব্যাহত ভাবে হুমকি-ধামকি দেয়ার ব্যাপারে নওদাবাস ইউ,পি চেয়ারম্যান অস্বীকার করে বলেন, ছেলেটির বয়স কম। এছাড়াও ধর্ষণের ঘটনাটি সাঁজানো বলে দাবি করেন ইউ,পি চেয়ারম্যান অশ্বনী কুমার বসুনীয়ার।

হাতীবান্ধা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) আব্দুর রাজ্জাক উত্তরবাংলাকে জানান, শিশু ধর্ষণের ঘটনায় দায়েরকৃত মামলায় কিশোর সাবুকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*