Saturday , August 18 2018
Home / বাংলাদেশ / ৩ টা ভার্সিটিতে চান্স পেয়েও টাকার কারনে একটাতেও ভর্তি হতে পারছে না ফরিদুল

৩ টা ভার্সিটিতে চান্স পেয়েও টাকার কারনে একটাতেও ভর্তি হতে পারছে না ফরিদুল

মো:ইসতিয়াক ফারদিন সজীব:
ভাই আমাদের এলাকার আশেপাশেও কেউ কখনও বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সুযোগ পায়নি। তাই এলাকার অনেকেরই বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কে ধারণা নেই। গত বছর ভর্তি পরীক্ষা দিতে যাওয়ার জন্য যাতায়াতের টাকা যোগার করতে না পারায় গ্যাপ দিয়েছিলাম। এবার কষ্ট করে টাকা যোগাড় করে তিনটি বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষা দিয়ে তিনটিতেই ভর্তির সুযোগ পেয়েছি।

এরমধ্যে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘সি’ ইউনিটে ৪৭৯তম, হাজী দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘এফ’ ইউনিটে ৫৩তম, ‘বি’ ইউনিটে ২৪০তম, ‘ডি’ ইউনিটে ১৭৮তম এবং পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘এ-ওয়ান’ ইউনিটে ৪১৮তম স্থানে আছি। কিন্তু টাকার অভাবে এখন কোথাও ভর্তি হতে পারিনি।

খুব ইচ্ছে আছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার। এজন্য সব মিলে মাত্র ৪২০০ টাকা দরকার। সেটিও এখনও যোগার করতে পারিনি। অথচ ১১ ডিসেম্বর ভর্তির শেষ তারিখ।

শুক্রবার রাতে মাইক্রোনিউজের সঙ্গে আলাপকালে কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী পৌরসভা এলাকার মালভাঙ্গা গ্রামের ফরিদুল এসব কথা জানায়। সে ওই গ্রামের বিদ্যুৎ মিস্ত্রি আইয়ুব আলীর ছেলে।

ফরিদুল আরও জানায়, কাল/পরশুর মধ্যে হয়তো ৪ হাজার ২০০ টাকা দরকার যোগার হয়ে যাবে। কিন্তু ভর্তি হতে রাজশাহী যাওয়ার টাকা, ভর্তি হওয়ার পর থাকা খাওয়ার টাকা কোথায় পাবো? এ নিয়ে খুব চিন্তায় আছি। এসব চিন্তা করতে দেখে আব্বা মাঝে মধ্যে বলছে থাক ভর্তি হওয়ার দরকার নেই। এ কথা শুনে আরও সাহস হারিয়ে ফেলছি। কী করবো বুঝে উঠছে পারছি না।

ফরিদুল ২০১৪ সালে বল্লভপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে জিপিএ-৫ পেয়ে এসএসসি, ২০১৬ সালে নাগেশ্বরী কলেজ থেকে জিপিএ-৪.৫৮ পেয়ে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে এইচএসসি পাস করে।

বল্লভপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, ফরিদুল অত্যন্ত মেধাবী ছাত্র। সে বিশ্বদ্যিালয়ে ভর্তির সুযোগ পেয়েছে, কিন্তু অর্থের অভাবে ভর্তি হতে পারছে না। সমাজে অনেক হৃদয়বান ব্যক্তি আছেন তারা ফরিদুলের পাশে দাঁড়ালে হয়তো সে অনেক বড় হতে পারবে। কারণ তার চেষ্টা আছে।

হৃদয়বানদের সহযোগিতা চাইলেন ফরিদুলের বাবা আইয়ুব আলীও। ফরিদুলকে কেউ সহযোগিতা করতে চাইলে যোগাযোগ করতে পারেন ০১৭২২৮১৭২৯৯ অথবা ০১৭৯৬৭৬১৮৪৬ নম্বরে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*